শনিবার ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপি নেত্রী ও তার মহাসচিবেরই শিষ্টাচার শিখতে হবে: তথ্যমন্ত্রী

  |   বুধবার, ৩১ আগস্ট ২০২২ | প্রিন্ট

বিএনপি নেত্রী ও তার মহাসচিবেরই শিষ্টাচার শিখতে হবে: তথ্যমন্ত্রী

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া, তার দলের মহাসচিব ও অন্যান্য নেতাকর্মীদের শিষ্টাচার শিখতে হবে।

 

আজ বিকেলে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) আয়োজিত ‘শোকাবহ ১৫ আগস্ট ও ২১ আগস্ট স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল খালেদা জিয়াকে বিদেশ পাঠানো নিয়ে কিছু কথা বলেছেন, সে পরিপ্রেক্ষিতে মির্জা ফখরুল সাহেব শিষ্টাচার নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। আমি ফখরুল সাহেবকে অনুরোধ জানাই, দেশের প্রধানমন্ত্রী যখন খালেদা জিয়ার পুত্র আরাফাত রহমান কোকো মারা যান; তখন তার দরজায় গিয়ে দাঁড়িয়ে ছিলেন ২০ মিনিট। তারপরও দরজা খোলেননি এটা কোন ধরনের শিষ্টাচার।

 

‘শুধু তাই নয়, দেশের প্রধানমন্ত্রী যখন তাকে গণভবনে আমন্ত্রণ জানিয়ে বলেন, আপনি (খালেদা জিয়া) আসুন আপনার সঙ্গে আমরা আলাপ করি। তখন বিএনপি নেত্রী যে ভাষায় কথা বললেন সেটি কোন ধরনের শিষ্টাচার।

 

ড. হাছান বলেন, দেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, সংসদের বিরোধী দলীয় নেত্রী আহত হলেন আর সংসদে দাঁড়িয়ে খালেদা জিয়া বললেন উনাকে কে মারবেন, গ্রেনেড তো উনারাই নিয়ে গিয়েছেন ভ্যানিটি ব্যাগে করে- এটা কোন ধরনের শিষ্টাচার। শিষ্টাচার আমাদের শেখাবেন না। শিষ্টাচার আপনাদের শেখার প্রয়োজন রয়েছে।

 

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার প্রতি বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে মহানুভবতা দেখিয়েছেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকলে সেটা দেখাতো না।

 

তথ্যমন্ত্রী আরো বলেন, কয়েকদিন পরপর বিএনপি নেতারা বলেন খালেদা জিয়াকে বিদেশ না নিলে তার জীবন সংকটাপন্ন। এগুলো বলার পর দেখা যায় খালেদা জিয়া ভালো হয়ে ফেরত যান। বেশি কথা বলতে চাই না, আমাকে আমার নেত্রী শিষ্টাচার শিখিয়েছেন, আমার পরিবারও শিষ্টাচার শিখিয়েছে। কিন্তু কারো জীবন যখন সংকটাপন্ন হয় তখন কি কেউ সেজেগুজে হাসপাতালে যান! এটির জবাব মির্জা ফখরুল সাহেব নিশ্চয় দেবেন?

 

ড. হাছান বলেন, ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের অন্যতম প্রধান কুশীলব ছিল জিয়াউর রহমান। আর ২১ আগস্টের হত্যাকাণ্ডের অন্যতম কুশীলব হচ্ছে জিয়াউর রহমানের স্ত্রী খালেদা জিয়া এবং তার ছেলে তারেক জিয়া। সুতরাং দুটি হত্যাকাণ্ড একই সূত্রে গাথা।

 

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের- ডিইউজে সভাপতি সোহেল হায়দার চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি ওমর ফারুক, সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুভাষ চন্দ বাদল, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, বিএফইউজে’র সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, সাবেক মহাসচিব আব্দুল জলিল ভূঁইয়া, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, ডিইউজে’র সহ-সভাপতি মানিক লাল ঘোষ, যুগ্ম সম্পাদক খায়রুল আলম প্রমুখ।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১৬:৪১ | বুধবার, ৩১ আগস্ট ২০২২

Swadhindesh -স্বাধীনদেশ |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement
Advisory Editor
Professor Abdul Quadir Saleh
Editor
Advocate Md Obaydul Kabir
যোগাযোগ

Bangladesh : Moghbazar, Ramna, Dhaka -1217

ফোন : Europe Office: 560 Coventry Road, Small Heath, Birmingham, B10 0UN,

E-mail: news@swadhindesh.com, swadhindesh24@gmail.com

%d bloggers like this: