রবিবার ২৬শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাল টাকার ব্যাবসা থেকে ইয়াবা সম্রাট আলম

  |   শুক্রবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | প্রিন্ট

জাল টাকার ব্যাবসা থেকে ইয়াবা সম্রাট আলম

 

নিজস্ব প্রতিবেদক: ইয়াবা সম্রাট আলমের অতীত সম্পর্কে অনুসন্ধান করতে গিয়ে জানাজায়, মৃত জাল্লাল উদ্দিনের দুই ছেলে দুই মেয়ের মধ্যে আলম সবার ছোট। বাবা মা না থাকায় সংসার যখন তার কাধে এসে পড়ে অভাব অনটনের সময় তার বড় ভাই একটি অটো কিনে দেয়, তিন বছর অটোরিকশা চালানোর পরে আলমের মধ্যে হঠ্যাৎ পরিবর্তন দেখা যায়। কিছুদিন পর আলম অটোরিকশা বিক্রয় করে জাল টাকার ব্যাবসা শুরু করে। চৌড়হাস মোড়ে তার দূড় সম্পর্কের এক নানার কাছ থেকে ৩০০ টাকা দিয়ে ১,০০০টাকার একটি জাল টাকা ক্রয় করে। খুব সহজে জাল টাকা ভাঙ্গিয়ে ৭০০টাকা লাভ করে আলম। তারপর তার কাছে থাকা অটোরিকশা বিক্রয়ের ৩০,০০০ টাকা দিয়ে ১,০০ ০০০ জাল টাকা ক্রয় করে।

প্রথমে কুষ্টিয়া শহরের ভিভিন্ন এলাকার মুদি দোকানদার, তেল বিক্রেতা, বিকাশের দোকানে টাকা ভাঙ্গিয়ে রাতারাতি টাকার মালিক হয়ে যায়। তারপর আলম ১০,০০০ টাকা দিয়ে ৩,০০,০০০ লক্ষ জাল টাকা ক্রয় করে, ব্যাবসা বড় হওয়ায় আলম দুইজন সহযোগী কে সাথে নেয়। এই দুইজন সহযোগীর এক জন হলো মিলপাড়ার বাসিন্দা সজিব, অন্যজন হলো চাঁপড়া ইউনিয়নের গুসাইডাঙ্গা গ্রামের মেহেদি কে সাথে নিয়ে তিনজন জন কুষ্টিয়া জেলার বিভিন্ন থানা উপজেলায় টাকা ভাঙ্গাতে শুরু করে। সামনে কুরবানির পশুর হার্ট উপলক্ষে ১,৮০,০০০ টাকা দিয়ে ৬,০০,০০০ লক্ষ জাল টাকা ক্রয় করে কিস্তির উপর তিনটা চাইনা মোটরগাড়ি কিনে সহযোগী দুইজনকে পাশের জেলায় পাঠায় আর আলম হাউজিং পশু হার্টে র দায়িত্ব নেয়।

পাশের জেলা চুয়াডাঙ্গায় সজিব টাকা ভাঙ্গাতে গেলে পুলিশের হাতে ধরা খেয়ে স্বীকারোক্তি দেয় আমার মহাজন আলম তার সাথে মেহেদি সহ আমরা তিনজন ব্যাবসা করি। চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সজিব কে কোর্টে চালান করে দেয়। চুয়াডাঙ্গা পুলিস মামলার তদন্ত কুষ্টিয়া থানায় পাঠায় তদন্তকারী আলম মেহেদি কে ধরতে গেলে র‍্যাব ডিবির সোর্স আলম টাকা পয়সা দিয়ে লবিং করে ঠিক করে নেয় মামলা, ডিবির এক এস আই এই লবিং করে দেয়, পরে ডিবির এস আই বলে এইবারের মত বাচিয়ে দিলাম পরের বার কোনো জাল টাকার কোমপ্লিন পাইলে তোকে কিন্তু আর ছাড় দেওয়া যাবে না ধরে নিয়ে যাব। এইবার আলম কিছুদিন যাবত র‍্যাব ডিবির সাথে সোর্স গিরি করে মরণ নেশা ইয়াবার সাথে জড়িত হয়ে যায়।

এলাকাবাসী চোখের সামনে ইয়াবা গাঁজা লেনদেন করছে। আলমের ইয়াবা গাজা ব্যাবসায় বাধা দেন না কেনো এলাকাবাসী কে প্রশ্ন করা হলে বলেন, দেখেন আমরা সাধারন মানুষ আলম র‍্যাব ডিবির সোর্স, কিছু বলতে গেলে আলম হামলা মামলার ভয় দেখায়। এ বিষয়ে আলমের সাথে মোবাইল ফোনে একাধিক বার ফোন দিলেও ফোন রিসিভ করেন নাই।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১৯:৩৩ | শুক্রবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮

Swadhindesh -স্বাধীনদেশ |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement
Advisory Editor
Professor Abdul Quadir Saleh
Editor
Advocate Md Obaydul Kabir
যোগাযোগ

Bangladesh : Moghbazar, Ramna, Dhaka -1217

ফোন : Europe Office: 560 Coventry Road, Small Heath, Birmingham, B10 0UN,

E-mail: news@swadhindesh.com, swadhindesh24@gmail.com