শনিবার ১০ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জনদুর্ভোগ বাড়াতেই নয়াপল্টনে সমাবেশ করতে চায় বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   মঙ্গলবার, ২২ নভেম্বর ২০২২ | প্রিন্ট

জনদুর্ভোগ বাড়াতেই নয়াপল্টনে সমাবেশ করতে চায় বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী

গাড়ি ভাঙচুর, বিশৃঙ্খলা ও জনজীবনে দুর্ভোগ সৃষ্টি করতেই বিএনপি নয়াপল্টনের মতো জায়গায় সমাবেশ করতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

 

নয়াপল্টনে রাস্তার ওপর বিএনপির সমাবেশ করতে চাওয়ার পেছনে হীন উদ্দেশ্য আছে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপি তাদের কর্মসূচির মাধ্যমে দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়।

আজ (২২ নভেম্বর) রাজধানীর বাংলামোটরে বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের কনফারেন্স রুমে ‘তামাকজাত পণ্যে সুনির্দিষ্ট করারোপ ও তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন শক্তিশালীকরণে গণমাধ্যমের সঙ্গে অভিজ্ঞতা বিনিময়’ শীর্ষক মতবিনিময় সভা শেষে সংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

 

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার বিএনপির সমাবেশে সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা করছে। তারা যেনো ভালোভাবে সমাবেশ করতে পারে সেজন্য সব ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ফলে তারা ভালোভাবে সমাবেশ করছে। তবে তাদের উদ্দেশ্য ভালো নয়। ঢাকার আশপাশে এত জায়গা থাকার পরেও ১০ ডিসেম্বর তারা নয়াপল্টনের রাস্তায় সমাবেশ করতে চাচ্ছে। তাদের উদ্দেশ্য কী? নয়াপল্টনের সামনে সমাবেশ করলে তারা গাড়ি ভাঙচুর করতে পারবে, বিশৃঙ্খলা তৈরি করা যাবে, জনজীবনে দুর্ভোগ সৃষ্টি করা যাবে। এটাই তাদের উদ্দেশ্য। এজন্যই তারা নয়াপল্টনে সমাবেশ করতে চায়।

 

সরকার বিএনপির সমাবেশে বাধা দিচ্ছে না উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘আমরা কউকে কোনো বাধা দিতে চাই না। বাধা দিলে তারা কোনো সমাবেশ করতে পারত না। বাধা তারা আমাদের দিয়েছিল। আমাদের সমাবেশে তারা গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিল। সারাদেশে বিভিন্ন সমাবেশে তারা বোমা হামলা করেছিল। বহু মানুষকে তারা হত্যা করেছিল। তাদের সমাবেশে কী আজ পর্যন্ত একটা পটকাও ফুটেছে? তাদের মিটিং পণ্ড করতে দুটি পটকাই যথেষ্ট। কিন্তু তা হয়নি। তারা দুই তিন দিন অবস্থান করে সমাবেশ করছে।

 

জঙ্গি ছিনতাই প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিবের মন্তব্যের সমালোচনা করে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘সরকার জঙ্গিদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছিল তখন বেগম খালেদা জিয়া এ নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, কিছু লোককে ধরে আনা হয়, কিছুদিন আটকে রাখার পর যখন তাদের চুল দাঁড়ি লম্বা হয় তখন তাদের জঙ্গি বলা হয়। এর মাধ্যমে তিনি জঙ্গিদের গ্রেফতারের বিরোধিতা করেছিলেন।

 

বিএনপিকে জঙ্গিবাদের প্রধান পৃষ্টপোষক ও অর্থদাতা আখ্যা দিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, তাদের জোটের মধ্যেই জঙ্গিগুষ্টি আছে। মির্জা ফখরুলের বক্তব্য এটাকেই সমর্থন করে। তারা জঙ্গি দমনের বিরুদ্ধে। কারণ তারা দেশকে অস্থিতিশীল করতে চায়। ঢাকায় জঙ্গি ছিনতাই, চট্টগ্রামে পুলিশ বক্সে হামলা ও বিএনপির তৎপরতা সব একই সূত্রে গাঁথা।

 

অর্থনীতি নিয়ে বিএনপি অপপ্রচার করছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের এই নেতা বলেন, ‘যুদ্ধের কারণে সমগ্র বিশ্বের অর্থনীতি যখন টালমাটাল, তার মধ্যে বাংলাদেশের অর্থনীতি ভালো অবস্থায় আছে এবং এগিয়ে যাচ্ছে। ফখরুল সাহেবরা এটা দেখছেন না। তারা নানা ধরনের কথা বলে যাচ্ছেন। বিশ্ব ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট দেশে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বলে গেছেন, বাংলাদেশ এই সংকটের মধ্যে যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তা অন্য দেশের জন্য উদাহরণ।’

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ০৯:২১ | মঙ্গলবার, ২২ নভেম্বর ২০২২

Swadhindesh -স্বাধীনদেশ |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement
Advisory Editor
Professor Abdul Quadir Saleh
Editor
Advocate Md Obaydul Kabir
যোগাযোগ

Bangladesh : Moghbazar, Ramna, Dhaka -1217

ফোন : Europe Office: 560 Coventry Road, Small Heath, Birmingham, B10 0UN,

E-mail: news@swadhindesh.com, swadhindesh24@gmail.com

%d bloggers like this: