January 26, 2021, 11:07 am

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :
দেশ ও বিদেশের প্রতিটি থানা, উপজেলা, জেলা, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রতিনিধি আবশ্যক । আগ্রহী প্রার্থীদের বায়োডাটা ও ছবিসহ আবেদন করতে অনুরোধ জানানো যাচ্ছে । বরাবর, সম্পাদক, দৈনিক স্বাধীনদেশ । news@swadhindesh.com
সংবাদ শিরোনাম :
বাংলাদেশকে দ্রুত টিকা দিতে অঙ্গীকারবদ্ধ ভারত মির্জা ফখরুলের জন্মদিন আজ ১২ কোটি টাকায় গাবতলী-মহাখালী বাস টার্মিনাল ইজারা দিল ডিএনসিসি করোনার নতুন প্রজাতির বিরুদ্ধে কার্যকর মডার্নার টিকা ভ্যাকসিন নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াবেন না, বিএনপিকে কাদের রাজধানীতে দিনের তাপমাত্রা কিছুটা বাড়বে নৌশ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার, লঞ্চ চলাচল শুরু এ বছর অটোপাস সম্ভব নয়: শিক্ষামন্ত্রী করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ মৃত্যু, শনাক্ত ৬০২ ভারত থেকে যে টিকা এসেছে তা নিয়ে সন্দেহ আছে : রিজভী চসিক নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করবে না সরকার : কাদের ৪ দিন আবহাওয়া পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই প্লেন বিধ্বস্ত, সভাপতিসহ ৪ ফুটবলার নিহত করোনার টিকা পেতে নিবন্ধন করবেন যেভাবে যত্রতত্র নির্মাণ সামগ্রী রাখলে এক বছরের দণ্ড সাকিব-তামিমের ব্যাটে এগোচ্ছে টাইগাররা ৫ মাসে ৩১ বার করোনা পজেটিভ এক নারী স্বাধীনতাবিরোধীদের বিচারের দাবিতে গড়ে ওঠা একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি বন্ধের দাবি:কাজী ফিরোজ ৬৯’র ২৪ জানুয়ারির মতো একটি গণঅভ্যুত্থান ছাড়া এ সরকার যাবে না:মান্না চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন সুষ্ঠু হবে, আশ্বস্ত হয়েছেন সিইসি
নেই সেই কাড়াকাড়ি, পিপিই পরছেন না চিকিৎসকরাও

নেই সেই কাড়াকাড়ি, পিপিই পরছেন না চিকিৎসকরাও

দেশে যখন মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হয় তখন পার্সোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) নিয়ে তুলকালাম কাণ্ড ঘটেছিল৷ এটা নিয়ে দুর্নীতিও হয়৷ আর চিকিৎসকেরা বলেছিলেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত সবারই পিপিই দরকার৷ এমনকি এই পিপিইর অভাবে চিকিৎসকরা স্বাস্থ্যসেবা থেকে বিরত থাকার কথাও বলেছিলেন৷,

তাদের কথা ছিল কোভিড এবং নন-কোভিড যে ধরনের চিকিৎসাই হোক না কেন স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিতদের পিপিই আবশ্যক৷ তাদের যুক্তি ছিল পরীক্ষার আগে যেহেতু বোঝার উপায় নেই যে কে কোভিড আর কে নন-কোভিড রোগী তাই চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত সবার পিপিই দরকার৷ শুধু তাই নয়, যারা সাধারণ মানুষকে সরাসরি বিভিন্ন ধরনের সেবা দেন তাদেরও পিপিই দরকার৷ এন-৯৫ মাস্কসহ এক সেট পিপিইর দাম তখন ছিল ৭ থেকে ১০ হাজার টাকা৷,

কিন্তু এখন পরিস্থিতি পাল্টে গেছে৷ সাধারণ স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক নার্সরা তো পিপিই ব্যবহার করছেনই না৷ এমনকি কোভিড চিকিৎসায় পিপিই ব্যবহারে অনীহা দেখা যাচ্ছে চিকিৎসক-নার্সদের মধ্যে৷ আর কোভিড চিকিৎসায় নিয়োজিত অন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা বলতে গেলে পিপিই ব্যবহার ছেড়েই দিয়েছেন৷ এ নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরেরও তেমন কোনো মাথাব্যথা নেই৷

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, কোনো জেনারেল ওয়ার্ডের চিকিৎসক নার্স বা স্বাস্থ্যকর্মী কেউই পিপিই পরিধান করছেন না৷ কেবল পিপিই নয় সামাজিক দূরত্ব মানা নিয়েও প্রশ্ন করা যায়৷ তবে তারা মাস্ক পরছেন৷ ওয়ার্ডগুলোতে রোগীর দর্শনার্থীদের অনেককেই দেখা যায় মাস্ক ছাড়া৷,

ঢাকা মেডিকেলের নতুন ভবনটি কোভিড রোগীদের চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত৷ সেখানে ওয়ার্ডগুলোর সামনে প্রচুর দর্শনার্থীর ভিড়৷ একটি ওয়ার্ডে ঢুকে দেখা যায় সেখানে নার্সরা পিপিই ব্যবহার করলেও চিকিৎসক পিপিই পরিধান করেননি৷ তবে তিনি মাস্ক, গ্লোভস ব্যবহার করেছেন৷,

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এখন শুধুমাত্র কোভিড হাসপাতালও ও কোভিড ওয়ার্ড ছাড়া আর কোথাও পিপিই ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা নাই৷ কিন্তু কোভিড হাসপাতালেও এই বাধ্যবাধকতার ব্যাপারে অনেকেই উদাসীন৷,

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক বলেন, ‘করোনার শুরুতে রোগী চিকিৎসক সবার মধ্যেই একটা আতঙ্ক ছিল৷ কিন্তু এখন ভয় কেটে গেছে৷ আমরা সাধারণ ওয়ার্ডে চিকিৎসকদের এখনো মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক রেখেছি৷ আর কোভিড ওয়ার্ডের জন্য পিপিই বাধ্যতামূলক৷ তবে কোভিড ওয়ার্ডের কেউ যদি পিপিই না পরেন তাহলে ঠিক করছেন না৷’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরও মনে করে এখন আর সাধারণ রোগীর চিকিৎসায় নিয়োজিতদের পিপিই দরকার নাই৷ তাই তারা এখন আর সবাইকে এই পিপিই সরবরাহ করছে না৷ শুধু সরকারি কোভিড হাসপাতালগুলোকেই পিপিই দিচ্ছে৷,

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, ‘আমরা কেন, কেউই তো কোভিডের শুরুতে অনেক কিছু জানত না৷ মানুষ না জেনে তখন বস্তা বস্তা ক্লোরোফেন খেয়ে শেষ করেছে৷ অক্সিজেন লাগার কথাও জানত না৷ এখন আমরা অনেক কিছু জানছি৷ তাই এখন শুধু কোভিড চিকিৎসায় নিয়োজিতরাই পিপিই ব্যবহার করছেন৷ বাকিদের দরকার নাই৷’

অবশ্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের এই কথার সঙ্গে কোনো কোনো চিকিৎসক দ্বিমত করেন৷ তারা বলেন, এখন কোভিড ও নন-কোভিড রোগী মিশে গেছে৷ তাই চিকিৎসা সেবা যে ধরনেরই হোক না কেন, যারাই দেবেন তাদেরই পিপিই ব্যবহার করা উচিত৷ চিকিৎসকেরা তো এখনো আক্রান্ত হচ্ছেন৷,

চিকিৎসক ফাউন্ডেশনের প্রধান সমন্বয়কারী ডা. নিরুপম দাস বলেন, ‘এখন কোভিডের আতঙ্ক অনেকটাই কেটে যাওয়ায় সাধারণ রোগীর চিকিৎসায় নিয়োজিত চিকিৎসক নার্সরা পিপিই পরছেন না৷ কিন্তু পরতে হবে৷ নিরাপত্তার জন্যই পরতে হবে৷ কারণ এখন কোভিড ও নন-কোভিড রোগী মিশে গেছে৷ তাই সতর্কতা আরও বেশি প্রয়োজন৷ তবে কেউ না পরলে কী করার আছে?’

তিনি জানান, কোভিড হাসপাতালেও এখন স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিতদের কেউ কেউ সব ইকুইপমেন্ট ব্যবহার করেন না৷ গাউন ব্যবহারে অনীহা আছে৷,

দেশে করোনা সংক্রমণ আবার বাড়ছে৷ এই শীতে করোনার দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণের আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ আর এই কারণে ঘরের বাইরে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে৷ বুধবার থেকে ঢাকাসহ সারাতেদশে মোবাইল কোর্ট কাজ শুরু করেছে৷ যারা মাস্ক ব্যবহার করছেন না তাদের জরিমানা করা হচ্ছে৷ একই সঙ্গে তারা মাস্ক বিতরণও করছেন৷ সূত্র: ডয়চে ভেলে

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.




© All rights reserved © 2011-2020 www.swadhindesh.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com