September 26, 2020, 12:19 pm

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি :
দেশ ও বিদেশের প্রতিটি থানা, উপজেলা, জেলা, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রতিনিধি আবশ্যক । আগ্রহী প্রার্থীদের বায়োডাটা ও ছবিসহ আবেদন করতে অনুরোধ জানানো যাচ্ছে । বরাবর, সম্পাদক, দৈনিক স্বাধীনদেশ । news@swadhindesh.com
সংবাদ শিরোনাম :
অতিরিক্ত সচিব হলেন ৯৮ কর্মকর্তা বিশ্বকে এক হয়ে কাজ করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পাবনা-৪ আসনে ভোট চলছে ইউক্রেনে সামরিক বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ২২ সৌদি প্রবাসীদের ফেরাতে বিশেষ ফ্লাইট আজ দেশের ১৯টি অঞ্চলে ঝড়বৃষ্টির সম্ভাবনা শেখ হেলাল এপি’র মায়ের সুস্থতা কামনায় মোরেলগঞ্জে দোয়া মাহফিল মোরেলগঞ্জে চা বিক্রেতার ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার আটক-৩ বিএনপি ‘অবৈধ পথে চোরাগলি দিয়ে’ ক্ষমতায় আসার চেষ্টা করছে উপ-নির্বাচনে সন্ত্রাসী আলামত দেখছেন রিজভী দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে ক্ষমা চাইলেন কিম করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১৩৮৩ ‘গরিব দেশগুলোর চুরি করা অর্থ ফেরত দিতে হবে’: ইমরান খান ফরেন সার্ভিস একাডেমির নতুন ভবন উদ্বোধন বিয়ে করলেই নবদম্পতি পাবেন ৫ লাখ টাকা নেপালে ভূমিধসে নিহত ১২, বহু লোক নিখোঁজ একটি অভিযোগ প্রমানিত হলে রাজনীতি ছেড়ে দেব: ভিপি নুর অবশেষে বার খোলার অনুমতি পেল আবাসিক হোটেলগুলো কেয়ামতের দিন বিশ্বনবির সবচেয়ে কাছের হবেন যে ব্যক্তি ৩ ঘণ্টার মধ্যে শেষ করতে হবে ওমরাহ
সিজার পরবর্তী জটিলতা | মা ও শিশু কী কী সমস্যায় পড়ে?

সিজার পরবর্তী জটিলতা | মা ও শিশু কী কী সমস্যায় পড়ে?

মাতৃত্ব একজন নারীর জীবনে আনে পরিপূর্ণতা। প্রত্যেকটি মা-ই চায় তাঁর সন্তানটি যেন নিরাপদে পৃথিবীর আলো দেখে। আর সে যেন তাকে সুস্থভাবে দিতে পারে সঠিক সেবা। সিজারিয়ান সেকশন (Cesarean section) অন্যতম একটি নিরাপদ ও জনপ্রিয় ডেলিভারি পদ্ধতি। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে সিজার পরবর্তী সময়ে মা ও শিশুর কিছু শারীরিক জটিলতা দেখা দেয়। যা কোন কোন সময়ে দুজনের জন্যই মারাত্মক হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। আমদের আজকের আলোচনার বিষয় সিজার পরবর্তী সময়ে মা ও শিশুর ঝুঁকি। চলুন তবে জেনে নেই মা ও শিশুর ক্ষেত্রে সিজার পরবর্তী জটিলতা সম্পর্কে!

মা ও শিশুর ক্ষেত্রে যে সব সিজার পরবর্তি জটিলতা দেখা যায়

১) মা-এর ক্ষেত্রে ঝুঁকিসমূহ

মায়ের ক্ষেত্রে কিছু জটিলতার কারণ বা রিস্ক ফ্যাক্টর (risk factor) নির্ণয় করা কঠিন। তবে বেশির ভাগ সময়ে নিচের ফ্যাক্টর-গুলো প্রধান কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

  • স্থুলতা
  • বাচ্চার আকার
  • জরুরি জটিলতা যখন দ্রুত সিজারিয়ান ডেলিভারি প্রয়োজন হয়
  • সার্জারি
  • একাধিক সন্তান থাকা
  • কিছু ওষুধের প্রতি প্রতিক্রিয়া
  • গর্ভকালীন সময়ে রক্তের অভাব
  • প্রি-ম্যাচিউর প্রসব বেদনা
  • ডায়াবেটিস

 

সিজারিয়ান ডেলিভারি-এর পর সংক্রমণ

১) এন্ডোমেট্রাইটি্স

এই ধরনের অপারেশন-এর পরে ইউটেরাস (Uterus) ব্যাকটেরিয়া দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি দেখা দেয়। যদি সিজারিয়ান সেকশন-এর পর ব্যাকটেরিয়া ইউটেরাস-এ যে ইনফেকশন বা সংক্রমণ-এর সৃষ্টি করে তাকে মেডিকেল-এর ভাষায় বলা হয় এন্ডোমেট্রাইটি্স (Endometritis)। একে সিজারিয়ান ডেলিভারি-এর একটি সরাসরি ফলাফল বললেও ভুল বলা হয় না। কারণ, যে সব মহিলাদের সিজারিয়ান ডেলিভারি হয় তাদের মধ্যে এই ইনফেকশন হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় (৫-১০)% বেশি।

২) পোস্ট সিজারিয়ান ইনফেকশন

এই অপারেশন-এর পর শুধুমাত্র যে  ইউটেরাস-এই ইনফেকশন-এর সম্ভাবনা থাকে  তা না, বাইরের চামড়ার স্তরেও অনেক সময় এটা দেখা দেয়। একে প্রায়ই বলা হয় পোস্ট সিজারিয়ান ইনফেকশন (post cesarean infection)। জ্বর, পেটে ব্যথাও এর সাথে দেখা দিতে পারে। চামড়ার বা টিস্যুর অন্য যে কোন স্তরের ইনফেকশন সাধারণত  অ্যান্টি-বায়োটিক দিয়ে সারানো হয়।কিন্তু যদি এই ধরনের ক্ষত খুব দ্রুত সারানো না হয়, তবে সেটা সহজেই ঘা বা পুঁজ-এর সৃষ্টি করতে পারে। তীব্র জ্বরের সাথে প্রস্রাবের ইনফেকশন (urine infection)-ও দেখা দিতে পারে সে ক্ষেত্রে।

৩) রক্তপাত

কখনো কখনো অন্য কোন জটিলতা থেকে অনেক বেশি রক্তপাত হতে পারে সিজারিয়ান ডেলিভারি-তে।এই ধরনের জটিলতাকে ডাক্তারি ভাষায় বলা হয়- পোস্ট প্যারটাম হেমোরেজ (Postpartum hemorrhage)। যখন শরীরের কোন অঙ্গ কাটা-ছেড়া করা হয় কিন্তু রক্তনালী সঠিকভাবে সেলাই করা না হলে অথবা প্রসব যন্ত্রণার কোন জরুরি পরিস্থিতিতে রক্তপাত দেখা দিতে পারে। যদিও এই জটিলতার সম্ভাবনা দিন দিন কমে আসছে তাও অন্তত ৬% ডেলিভারি-তে এটি এখনও দেখা যায়। যার ফলাফল স্বরূপ রক্তাল্পতা বা অ্যানেমিয়া (Anemia) ধরা পরে।

৪) রক্ত জমাট বাঁধা

সম্ভবত এটিকেই সবচেয়ে ভীতিকর জটিলতা হিসেবে ধরা হয়। অনেক সময় এই জমাট বাঁধা রক্ত ফুস্ফুসেও ছড়িয়ে যেতে পারে।অনেক উন্নত দেশেও মায়ের মৃত্যুর অন্যতম কারণ হিসেবে একে দায়ী করা হয়।

৫) ওষুধে প্রতিক্রিয়া

কিছু কিছু মহিলাদের ক্ষেত্রে ওষুধ বা অ্যানেস্থেসিয়া (Anesthesia) -এর জন্য বিরূপ প্রভাব দেখা যায়। যদিও এই সমস্যা একেক জনের ক্ষেত্রে একেক রকম।

৬) পরবর্তী সন্তান ধারণে জটিলতা

কিছু সিজারিয়ান ডেলিভারি-এর জটিলতা যেমনঃ হিস্টেরেক্টমি (hysterectomy)-এর কারনে পরবর্তী সন্তান ধারণ অসম্ভব হয়ে পরে। তারপরও মা যদি সুস্থও হয়ে উঠে সার্জারি-এর পরে তাও পরবর্তী সন্তান ধারণে যথেষ্ট ঝুঁকি থেকে যায়।এই ধরনের সার্জারি ইউটেরাস বা জরায়ুকে দুর্বল করে ফেলে। তবে আশার কথা এটাই যে এখন এই ধরনের সার্জারি-এর পরে সন্তান গ্রহন আগের চেয়ে অনেক নিরাপদ।

শিশুর ক্ষেত্রে ঝুঁকিসমূহ

মা ছাড়াও শিশুদের ক্ষেত্রে অনেক জটিলতার সৃষ্টি হয়। নিচের জটিলতাগুলো শিশুর শরীরে অনেক বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে।যেমনঃ

১. কম বয়সী মায়ের অপরিণত শিশুর জন্মদান

সুস্থ সন্তান প্রসবের ক্ষেত্রে মায়ের বয়স অনেক বড় একটি ফ্যাক্টর। ২০ বছরের কম বয়সী মায়ের সন্তান অনেক সময়ই জন্মগত ত্রুটির শিকার হয়।

২. শ্বাসকষ্ট

সিজারিয়ান বাচ্চাদের অনেক সময় শ্বাসকষ্ট সমস্যায় কষ্ট পেতে দেখে যায়।

৩. কম ওজন ও আকারের শিশু

মায়ের দীর্ঘমেয়াদী অপুষ্টি, খাবারে অরুচি,অন্যান্য অসুখের প্রতিক্রিয়ায় অনেক সময় শিশুর ওজন ও উচ্চতা স্বাভাবিকের চেয়ে কম হয়। এর ফলে শিশুর দীর্ঘমেয়াদী  অপুষ্টি ও স্বাস্থ্যহানি ঘটে।

৪. ইনফেকশন

মায়ের মতো শিশুর চামড়া, রক্তনালী বা কোন অঙ্গ ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। যা অনেক সময় শিশুটির জীবনে দীর্ঘমেয়াদী জটিলতার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। সিজারিয়ান ডেলিভারি-এর পর শিশুর যত্ন ঠিকমতো না নেয়া হলে অথবা অসাবধানতায় থাকলে ইনফেকশন দেখা দিতে পারে। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন পোশাক ও পরিবেশের জন্য খুবই জরুরি।

তবে উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থা,অভিজ্ঞ চিকিৎসক, পরিবারের সচেতনতার কারণে বর্তমানে বাংলাদেশে মা ও শিশুর প্রসব পরবর্তী তথা সিজারিয়ান সেকশন-এর পরবর্তী জটিলতা অনেকটাই কমে এসেছে। যা আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশের জন্য অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক।

সংগৃহীত: সাজগোজ; বিবিসি নিউজ

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.




© All rights reserved © 2011-2020 www.swadhindesh.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com